ওয়ালটন জাতীয় ইয়ুথ দাবায় যারা সেরা হলেন

ওয়ালটন জাতীয় ইয়ুথ দাবায় যারা সেরা হলেন
নিজস্ব প্রতিবেদক
চেসবিডি.কম
ঢাকা : ১৬ মার্চ ২০২০

ওয়ালটন স্মার্ট টিভি জাতীয় ইয়ুথ দাবা চ্যাম্পিয়নশিপে অনূর্ধ্ব-১৮ গ্রুপে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ফিদেমাস্টার সুব্রত বিশ্বাস অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। তিনি ৭ খেলায় সাড়ে ছয় পয়েন্ট পেয়ে শিরোপা জয় করেন। সাড়ে পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির নাফিম আল করীম রানারআপ হয়েছেন। পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে সিরাজগঞ্জের ক্যান্ডিডেটমাস্টার নাইম হক তৃতীয় স্থান লাভ করেন। চার পয়েন্ট সংগ্রহ করে এইচ এম শাফিন খান চতুর্থ ও মো. আনোয়ার হোসেন পঞ্চম হয়েছেন।

অনূর্ধ্ব-১৮ গ্রুপের বালিকা বিভাগে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির তাসনিয়া তারান্নুম অর্পা সাড়ে চার পয়েন্ট পেয়ে চ্যাম্পিয়ন, বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির আহমেদ ওয়ালিজা রানারআপ, কাজী জারিন তাসনিম তৃতীয়, মারুফা আজাদ সুকন্যা চতুর্থ ও চট্টগ্রামের ওমনিয়া বিনতে ইউসুফ লুবাবা পঞ্চম স্থান লাভ করেন।

অনূর্ধ্ব-১৬ ওপেন এবং বালিকা বিভাগের বিজয়ীরা

অনূর্ধ্ব-১৬ গ্রুপে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির মহিলা ক্যান্ডিডেটমাস্টার জান্নাতুল ফেরদৌস চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন।তিনি ৭ খেলায় ৬ পয়েন্ট পেয়ে শিরোপা জয় করেন। নারায়ণগঞ্জের মোর্তুজা মাহাথির ইসলাম সাড়ে পাঁচ পয়েন্ট করে নিয়ে রানারআপ ও মাহিন আহমেদ শুভ চতুর্থ এবং সাড়ে চার পয়েন্ট নিয়ে মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম পঞ্চম হয়েছেন।

অনূর্ধ্ব-১৬ বালিকা বিভাগে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির মহিলা ফিদেমাস্টার নোশিন আঞ্জুম সাড়ে পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। নারায়ণগঞ্জের আয়েশা আক্তার চার পয়েন্ট নিয়ে রানারআপ, মুশফিকা জান্নাত সাওরি চার পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয়, মোসাম্মৎ তানজিনা আক্তার চম্পা চতুর্থ ও তিন পয়েন্ট নিয়ে শ্রেয়া পোদ্দার পঞ্চম স্থান লাভ করেন।

অনূর্ধ্ব-১৪ ওপেন এবং বালিকা বিভাগের বিজয়ীরা

অনূর্ধ্ব-১৪ গ্রুপে একসেস চেস ক্লাবের স্বর্নাভো চৌধুরী ছয় পয়েন্ট নিয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। একই পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চগড়ের এস এম সাফওয়ান রানারআপ হন। পাঁচ পয়েন্ট করে নিয়ে মাবরুর নেওয়াজ তৃতীয় ও মুহাম্মদ আবতাহি আবরার চতুর্থ হন। সাড়ে চার পয়েন্ট নিয়ে মারযুক চৌধুরী পঞ্চম হয়েছেন।

অনূর্ধ্ব-১৪ বালিকা বিভাগে নুশরাত জাহান আলো পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। পাবনার মাইশা মাহজাবিন তিশা সাড়ে চার পয়েন্ট নিয়ে রানারআপ, রাজশাহীর জান্নাতুল ফেরদৌসী চার পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় ও তিন পয়েন্ট নিয়ে সানজিদা সাকিব চতুর্থ হয়েছেন।

অনূর্ধ্ব-১২ ওপেন এবং বালিকা বিভাগের বিজয়ীরা

অনূর্ধ্ব-১২ গ্রুপে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির ওয়াদিফা আহমেদ অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন।তিনি ৭ খেলায় সাড়ে ছয় পয়েন্ট পেয়ে শিরোপা জয় করেন। এ গ্রুপে সাড়ে পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির সৈয়দ রিদওয়ান রানারআপ, পাঁচ পয়েন্ট করে নিয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির মো. সাজিদুল হক তৃতীয় ও শেখ অনুপম কাদের চতুর্থ এবং সাড়ে চার পয়েন্ট নিয়ে এজহার হোসেন পঞ্চম স্থান লাভ করেন।

অনূর্ধ্ব-১২ বালিকা বিভাগে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির ইশরাত জাহান দিবা ৫ পয়েন্ট নিয়ে বালিকাদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন, আলিজাহ নুশায়বা ইসলাম ৪ পয়েন্ট নিয়ে রানারআপ ও একই পয়েন্ট নিয়ে প্রতিভা বাতুল তৃতীয় স্থান লাভ করেন। ফাতিহা ইয়েনুন দিয়া চতুর্থ ও সাবরিনা জাহান সেজুতি পঞ্চম হয়েছেন।

অনূর্ধ্ব-১০ ওপেন এবং বালিকা বিভাগের বিজয়ীরা

অনূর্ধ্ব-১০ গ্রুপে নারায়ণগঞ্জের ক্যান্ডিডেটমাস্টার মনন রেজা নীড় ৭ খেলায় পূর্ণ ৭ পয়েন্ট পেয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। ছয় পয়েন্ট নিয়ে নিয়ে পাবনার সাকলাইন মোস্তফা সাজিদ রানারআপ ও পাঁচ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চগরের এস এম সাদিদ তৃতীয় হন। সাড়ে চার পয়েন্ট নিয়ে সিয়াম চৌধূরী চতুর্থ ও চার পয়েন্ট নিয়ে আমিনুল ইসলাম সুদিন পঞ্চম হন।

অনূর্ধ্ব-১০ বালিকা বিভাগে পাবনার মেহজাবিন আক্তার জুবাইদা চার পয়েন্ট পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হন। মারযুকা মোকাররামা সাড়ে তিন পয়েন্ট পেয়ে রানারআপ ও আড়াই পয়েন্ট পেয়ে মাহানোনোভা আরাইফিন মৌ তৃতীয় হন।

অনূর্ধ্ব-৮ ওপেন এবং বালিকা বিভাগের বিজয়ীরা

অনূর্ধ্ব-৮ গ্রুপে ৭ খেলায় পূর্ণ ৭ পয়েন্ট নিয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির ওয়ারসিয়া খুশবু অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। গেটওয়ে চেস একাডেমির রিদওয়ান রব্বানী পাঁচ পয়েন্ট পেয়ে রানারআপ হন। সাড়ে চার পয়েন্ট করে নিয়ে সাফায়াত কিবরিয়া তৃতীয় ও জায়ান রাইদ চতুর্থ হন। সাড়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে রাইয়ান চৌধুরী সায়ান পঞ্চম হন।

অনূর্ধ্ব-৮ বালিকা বিভাগে আরিশা হোসেন তুবা চার পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়ন, তিন পয়েন্ট নিয়ে ইনায়া আফশিন রানারআপ ও নুশরাত হাসান নাবা তৃতীয় হন।

আজ ১৬ মার্চ সোমবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরাতন ভবনের তৃতীয় তলার দাবা ক্রীড়া কক্ষে এ আসর শেষে ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক ও গেমস ও ওয়েলফেয়ার বিভাগের প্রধান এফ এম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন।

টুর্নমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সহসভাপতি কে এম শহিদউল্যার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ দাবা ফেডাশেনের যুগ্মসম্পাদক মাসুদুর রহমান মল্লিক দিপু, বিশেষ অতিথি আন্তর্জাতিক অর্গাইজার মাহমুদা হক চৌধুরী মলি, বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী সদস্য জাকির আহমেদ ও দেবাষিশ দে এবং আন্তর্জাতিক দাবা বিচারক মো. হারুন অর রশিদ।

উল্লেখ্য ওয়ালটন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের আয়োজনে ৭ দিনব্যাপী ৭ রাউন্ড সুইস লিগ পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত ৬টি বিভাগের ১২টি ক্যাটাগরিতে বিভিন্ন জেলার মোট ১৩৩ জন খেলোয়াড় এতে অংশগ্রহণ করেন।

চেসবিডি.কম/এমএ